Home » প্রবাসী জীবন » হল্যান্ডে চলচ্চিত্রর চালচিত্র

হল্যান্ডে চলচ্চিত্রর চালচিত্র

অগ্নিভ সেনগুপ্ত

আদিম যুগ থেকে মানুষ গল্প বলতে চায়​, গল্প শুনতে চায়​। অভিজ্ঞতার সঙ্গে উর্ব্বর কল্পনার মিশ্রণে প্রাগৈতিহাসিক যুগ থেকে গল্পের প্রচলন সমৃদ্ধ করেছে মানবজাতিকে। শুধুমাত্র কথিত উপাখ্যান ন​য়​, আদিম গুহামানব গুহার দেওয়ালে রঙের আঁচ​ড়েও বলে গেছে অনেক গল্প​। আলতামিরার বাইসন, বা সদ্য​-প্রাপ্ত ইন্দোনেশিয়ার গুহাচিত্র আদিম জনজীবনের কাহিনী ব্যক্ত করেছে আজকের যুগে।

সম​য়ের সাথে-সাথে মানুষ লিপির জন্ম দেয়​। হরপ্পা-মহেঞ্জোদারোর শিলালিপি, বা ইজিপ্সিয়ান হাইরোগ্লিফিকস ত​ৎকালীন সমাজের গল্প বলে চলেছে ক্রমাগত​, আজকের যুগেও। কিন্তু, মূলত তা ছিল ত​ৎকালীন জনজীবনের রোজনামচা, অথবা সরকারী নথি। প্রকৃত অর্থে মহাকাব্যগুলিকে গল্প বা উপন্যাসের জনপ্রিয় উদাহরণ বলা যেতে পারে, সে আমাদের রামায়ণ​-মহাভারত হোক​, বা গ্রীকদের ইলিয়াড​-ওডিসি।

এখন যদিও অনেকেই মহাকাব্যকে ঐতিহাসিক দলিল হিসাবে প্রতিষ্ঠিত করার প্র​য়াস করছেন বিভিন্ন উদ্দেশ্যে।কিন্তু, ঐতিহাসিকদের মতে, প্রধানত ত​ৎকালীন সমাজের প্রকৃত প্রতিচ্ছবির সঙ্গে লেখকের (বা, লেখকদের​) কল্পনার মেলবন্ধনই মহাকাব্যের উৎস। পুরাকাল থেকে আজকের দিনেও মূলত সাহিত্যের প্রধান অবলম্বন লেখকের ব্যক্তিগত বা সামাজিক পরিস্থিতির দর্শন​।

যেকোন গল্পকেই ক​য়েকটি ভাগে বিভক্ত করা যায়​, যাকে বলা হ​য় স্টোরি স্পাইন বা গল্পের মেরুদন্ড​। লেখক সেই মেরুদন্ড বা কাঠামোর উপরেই ভিত্তি করে গ​ড়ে তোলেন তাঁর সাহিত্যকীর্তি। প্রধান উদ্দেশ্য​, পাঠকের কাছে সেই গল্পের মূল বা মোরাল তুলে ধরা, যাকে বলা যেতে পারে সেই গল্পের আত্মা।

২৮শে ডিসেম্বর​, ১৮৯৫। প্যারিস​। ল্যুমিয়েঁ ভ্রাতৃদ্ব​য় পৃথিবীকে দেখালেন (হ্যাঁ, আক্ষরিক অর্থেই) যে শ্রুত বা পঠিত মাধ্যমের বাইরেও গল্প বলা যায়​। চলচ্চিত্র​। তার আগেও অডিও-ভিজ্যুয়াল মাধ্যম অবশ্যই ছিল – লাইভ থিয়েটার। কিন্তু, চলচ্চিত্র যেহেতু চলমান চিত্রের সংকলন​​, সুতরাং গল্পের সূক্ষ্মতা ব্যক্ত করার মাধ্যম আরো উন্নত হয়ে উঠল​। থিয়েটার এবং চলচ্চিত্র​-মাধ্যমের তুলনামূলক আলোচনা বিস্তৃত একটি বিষ​য়​, এবং এই প্রবন্ধের উদ্দেশ্যও ন​য়​।

অবশ্যই, জন্মলগ্নে চলচ্চিত্র​-মাধ্যম ছিল দুর্বল এবং ত​ৎকালীন অন্যান্য জনপ্রিয় মাধ্যমের তুলনায় অপরিণত​। কিন্তু, সম​য়ের সাথে সাথে সেই মাধ্যম জনপ্রিয়তা লাভ করতে শুরু করে সমগ্র বিশ্বে। ১৯২৭ সালে মুক্তি পেল প্রথম সবাক চলচ্চিত্র (বা, টকিং মুভি) – দ্য জ্যাজ সিঙ্গার​। তার ন​য় বছর আগে, অর্থাৎ ১৯১৮ সালেই মুক্তি পেয়ে গেছে প্রথম রঙিন চলচ্চিত্র – দ্য কিউপিড অ্যাংলিঙ​। নাবালক থেকে সাবালক হ​য়ে উঠল চলচ্চিত্র​-মাধ্যম​, এবং আজকের যুগে বিনোদন-শিল্পের শীর্ষে বসে আছে বললে অত্যুক্তি করা হবেনা হ​য়তো।

সম​য়ের সাথে সাথে চলচ্চিত্র​-নির্মাণের পদ্ধতি বদলেছে। আগেকার তুলনায় এখনকার যুগে ফিল্মমেকিং খুব ব্যয়সাপেক্ষ শিল্প ন​য়​, তাই বাণিজ্যিক সিনেমার পাশাপাশি অনেক পরীক্ষামূলক চলচ্চিত্রও প্রকাশিত হচ্ছে। পূর্ণ-দৈর্ঘ্যের চলচ্চিত্রের মতোই সমান জনপ্রিয় হ​য়ে উঠছে স্বল্প-দৈর্ঘ্যের চলচ্চিত্র​। এমনকি অ্যাকাদেমি অ্যাওয়ার্ড বা কানের মতো উচ্চমার্গের চলচ্চিত্র​-উৎসবেও স্বল্প​-দৈর্ঘ্যের চলচ্চিত্র স্থান করে নিচ্ছে অনেকদিন ধরেই।

ব্যক্তিগত মতামত​, ছোটগল্প লেখার মতোই স্বল্প​-দৈর্ঘ্যের চলচ্চিত্র নির্মাণের প্রকরণ পূর্ণ​-দৈর্ঘ্য নির্মাণের তুলনায় কোনভাবেই স্বল্প ন​য়​। বিশেষত​, চিত্রনাট্য​। সীমিত সম​য়ের মধ্যে (সর্বাধিক ৪৫ মিনিট) একটি সম্পূর্ণ গল্পকে উপস্থাপনা করা দুঃসাধ্য প্র​য়াস​।

তবে, স্বল্প​-দৈর্ঘ্যের সিনেমা ধীরে ধীরে নিজের জায়গা করে নিচ্ছে সিনেমা-প্রেমীদের মধ্যে। প্রথমত​, এখনকার ব্যস্ত জীবনে আড়াই-তিন ঘন্টা বসে পূর্ণ​-দৈর্ঘ্যের সিনেমা দেখার অলস সম​য় কম​। তাই, ব্রেকফাস্ট করতে-করতে বা ডিনার টেবিলে চট করে ১৫-২০ মিনিটের একটা শর্ট ফিল্ম দেখে নেওয়া পছন্দ করছেন অনেকেই। দ্বিতীয়ত​, যেহেতু শর্ট ফিল্ম প্রযোজনা তুলনায় কম ব্য​য়সাপেক্ষ​, অনেকেই সাহস পাচ্ছেন নতুন গল্প​, নতুন বিষ​য় নিয়ে পরীক্ষা করার​। এবং, সেই প্র​য়াসকে সর্বতোভাবে সহায়তা করে চলেছে বিভিন্ন শর্ট ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল​। তা ছাড়া, ইউটিউব বা ভিমিও-এর মতো সোশ্যাল প্ল্যাটফর্ম তো আছেই।

এখনকার ডিজিট্যাল যুগে মোবাইল ফোনের অভাবনীয় উন্নতির সাথে শর্ট ফিল্ম বানানোর সাধন আক্ষরিক অর্থেই আমার​-আপনার হাতের মুঠোয়​। এখনকার বেশীরভাগ মোবাইল ফোনেই হাই-ডেফিনিশন ভিডিও শ্যুট করা সম্ভব​। অর্থাৎ, আপনার যদি সিনেম্যাটোগ্রাফি সম্বন্ধে সামান্য জ্ঞান থাকে, তাহলে আপনি প্রায় বিনামূল্যেই একটি শর্ট ফিল্ম বানিয়ে নিতে পারেন​।

যেকোন চলচ্চিত্রের মেরুদন্ড হচ্ছে গল্প বা চিত্রনাট্য​। বাকি সবকিছুই তার আনুসঙ্গিক​, সেই গল্পটাকে উপস্থাপন করার মাধ্যম​-মাত্র​। সুতরাং, আপনি মোবাইল ফোনে শ্যুট করুন বা উচ্চমানের 8K ক্যামেরায়, আপনার চিত্রনাট্য ভালো না হলে তা দর্শকের মনে দাগ কাটবে না।

মাধ্যম আয়ত্তে এসে যাওয়ার কারণে বিভিন্ন শর্ট​-ফিল্ম উৎসব ও সোশ্যাল মিডিয়ার কাঁধে ভর করে এখন অনেকেই স্বাধীনভাবে চলচ্চিত্র প্রযোজনা করছেন​। অর্থাৎ, কোন প্রযোজক সংস্থার সাথে যুক্ত না হ​য়ে, এবং অনেক ক্ষেত্রেই কোন বাণিজ্যিক উদ্দেশ্য ছাড়াই। ইদানীং ওটিটি (ওভার দ্য টপ​) প্ল্যাটফর্মের জনপ্রিয়তা এই ইন্ডিপেন্ডেন্ট ফিল্মমেকিং-এর পালে নতুন হাওয়া দিয়েছে। অন্যরকম কাজ করার পাশাপাশি কিছু অর্থ উপার্জনের রাস্তাও করে দিচ্ছে বিভিন্ন ওটিটি প্ল্যাটফর্ম​।

নেদারল্যান্ডসের ভারতীয় কম্যুনিটির মধ্যেও ক​য়েকজন স্বাধীন চলচ্চিত্র​-প্রযোজনা করছেন​। তাঁদের সাথে আলোচনা হল বিদেশের মাটিতে ইন্ডিপেন্ডেন্ট ফিল্মমেকিং-এর সুবিধা-অসুবিধা নিয়ে।

সুদীপ্ত চক্রবর্তী জানালেন​, প্রাথমিক সমস্যা হচ্ছে প্র​য়োজনীয় উপকরণের অভাব​। সুদীপ্ত পেশায় তথ্যপ্রযুক্তি-কর্মী । পাশাপাশি নিজের শখে শর্ট ফিল্ম বানান​, যা ওনার নিজস্ব ইউটিউব চ্যানেলে প্রকাশিত হ​য়​।

ওনার কথায়, শুধুমাত্র সরঞ্জাম ন​য়​, পেশাদার অভিনেতা অথবা টেকনিশিয়ানের অভাব প্রকট​। একই সুর এক অন্য ফিল্মমেকার অক্ষ​য় মহাশব্দের কথায়​। অক্ষ​য়ও নিজের পেশাগত কারণে নেদারল্যান্ডসের বাসিন্দা, এবং স্বাধীন চলচ্চিত্র-নির্মাণ করেন নিজের চ্যানেলের জন্যে। অক্ষ​য় আরো বলেন​, ভারতবর্ষে বহুস্তরীয় সমাজ ব্যবস্থার কারণে সেখানে চিত্রনাট্যের পটভূমির বিস্তৃতি অনেক বেশী। তবে, নেদারল্যান্ডসের নরম আলো সিনেম্যাটোগ্রাফির জন্যে শ্রেয়​, জানালেন অক্ষ​য়।

কথা হলো আর​-এক ফিল্মমেকার প্রসাদ সাওন্তের সাথে। প্রসাদের ভারতবর্ষে ফিল্মমেকিং-এর অভিজ্ঞতা নেই, নেদারল্যান্ডসে অন্যান্যদের মতোই নিজের ইউটিউব চ্যানেলের জন্যে শর্ট ফিল্ম বানান​। ওনার কথাতেও একই সুর​, নেদারল্যান্ডসে পেশাদার ফিল্মমেকিং-এর পথ বেশ দুর্গম​। বিশেষত​, ওনার কথায় ফুটে উঠছিল প্রশিক্ষিত অভিনেতার অভাবের আক্ষেপ​। তবে, উনি মনে করেন​, আগ্রহী অভিনেতারা যদি নেদারল্যান্ডসের বিভিন্ন থিয়েটারে নিয়মিত অভিন​য় করেন​, তাহলে অবশ্যই সেই খামতি মেটানো সম্ভব​।

নেদারল্যান্ডসে ইন্ডিপেন্ডেন্ট ফিল্মমেকিং-এর উন্নতি সাধনের জন্যে, বিশেষত ভারতীয় কম্যুনিটির নির্মাতাদের প্রধান করণীয় কি? এই প্রশ্নের উত্তরে তিন ফিল্মমেকারের একই সুর – নিজেদের মধ্যে যোগাযোগ বাড়ানো​, এবং একে অপরের দিকে সহায়তার হাত বাড়িয়ে দেওয়া।

তবে, আমার ব্যক্তিগতভাবে মনে হ​য়​, তার সাথে প্র​য়োজন দর্শকদের সহায়তা। একজন নির্মাতা মূলত শিল্প সৃষ্টি করে দর্শকদের জন্যেই। কিন্তু, সেই দর্শকদের থেকে যদি কোন প্রতিক্রিয়া না পাওয়া যায়​, তাহলে সেই শিল্পকর্মের মূল্য কমে যায়​। তাই, আপনারা যাঁরা এই লেখা প​ড়ছেন​, তাঁদের কাছে একান্ত অনুরোধ – নির্মাতাদের শিল্প দেখুন​, এবং আপনার প্রতিক্রিয়া জানান। সমালোচনা করুন​।

যেকোন ফিল্মমেকারের কাছে তাঁর নির্মিত চলচ্চিত্র তাঁর সন্তানের মতো। তাই, সেই চলচ্চিত্রের খারাপ দিকটা অনেক সম​য়েই তিনি দেখতে পান না। দর্শকের প্রধান কর্তব্য, সেই উন্নতিসাধনের রাস্তাটা দেখিয়ে দেওয়া।

যাঁরা এই লেখাটা প​ড়ছেন​, তাঁদের কাছে একটা অনুরোধ রেখে নটে গাছটা মুড়াবো। সুদীপ্ত​, অক্ষ​য়​, প্রসাদ​, বা আপনার চেনাশুনা যাঁরা সীমিত সামর্থে চলচ্চিত্র​-নির্মাণের চেষ্টা করছেন​, তাঁদের সহায়তা করুন​। ওনাদের শর্ট ফিল্মগুলো দেখুন​, ভালো লাগলে আপনাদের বন্ধু-আত্মীয়দের সঙ্গে শেয়ার করুন​। ভালো না লাগলে কমেন্টে জানান। আখেরে তাঁদের যেমন তাতে লাভ হবে, আপনারাও ভবিষ্যতে আরো ভালো কিছু সিনেমা উপহার পাবেন​।

কে বলতে পারে, আগামী দিনে নেদারল্যান্ডসে হ​য়তো ভারতীয় কম্যুনিটির থেকে পূর্ণ দৈর্ঘ্যের সিনেমা বানাতেও কেউ এগিয়ে আসবেন আপনার সহায়তায়​!

এই সূত্রে বলে রাখি, আমি নিজেও চেষ্টা করি শর্ট ফিল্ম বানানোর​। আমার ইউটিউব চ্যানেলে সেই কাজ আপনারা দেখতে পারেন​।

ভালো থাকবেন​, দেখতে থাকবেন​, আর জানাতে ভুলবেন না আপনাদের মতামত​।

আপনার মতামত:-