জানেন কি? রাত জেগে সোশ্যাল মিডিয়া আপনার অনিদ্রার কারণ হতে পারে?

এই যুগে সোশ্যাল মিডিয়া গোটা পৃথিবীতে জালিকার মতো ছেয়ে গেছে। এই সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে আমরা আমাদের বন্ধু-বান্ধব, আপনজনদের বিভিন্ন আপডেট পেয়ে থাকি। কিন্তু এই আপডেট পাওয়াটা যখন অতিরিক্ত হয়ে যায়, তখনই সেটা সর্বনাশের কারণ হয়ে দাঁড়ায়। যেটা আমাদের শরীর, মন এমনকি আমাদের ঘুমেও পর্যন্ত এফেক্ট করতে পারে।   

বিজ্ঞানসম্মতভাবে জানা গেছে, রাতে ঘুমের সময়ে কেউ যদি সোশ্যাল মিডিয়া দেখতে ভালোবাসে, তাহলে সেটা শরীরে ড্রাগের নেশার মতো ক্ষতি করবে। সমীক্ষায় এটাও জানা গেছে যে, আপনি যদি অতিরিক্ত সোশ্যাল মিডিয়া ব্যাবহার করেন, তাহলে প্রয়োজনের তুলনায় ঘুমের মাত্রা কমতে পারে।   

সমীক্ষায় জানা গেছে যে, ১১-১৫ বছর বয়সী কিশোর- কিশোরীরা কম্পিউটারে হোমওয়ার্ক ছাড়াও দিনের ৬-৮ ঘণ্টা কম্পিউটার বা মোবাইলের স্ক্রীন দিকে তাকিয়ে সময় কাটায়। এমনকি তারা ঘুমের সময়েও স্ক্রীন থেকে চোখ সরাতে পারে না।

আমাদের শারীর-বৃত্তীয় প্রক্রিয়ায় সোশ্যাল মিডিয়া অনেকভাবে এফেক্ট করে। তার মধ্যে অন্যতম হল অনিদ্রা। ঘুমের সঙ্গে সোশ্যাল মিডিয়ার একটা সম্পর্ক হল, স্মার্টফোন থেকে যে নীল আলো বেরোয়, সেটি আমাদেরকে জাগিয়ে রাখতে সাহায্য করে অর্থাৎ স্মার্টফোনের ঐ নীল আলো আমাদের চোখে দিনের আলো মতো কাজ করে, যেটি আমাদের জেগে থাকতে বাধ্য করে।

এই সোশ্যাল মিডিয়ার চ্যানেল গুলির অক্সিজেন হল সবসময়ের আপডেট। আসলে আমরা আমাদের বন্ধু-বান্ধব, আত্মীয় পরিজনদের ও পরিচিতদের জীবনে কি হচ্ছে অর্থাৎ সুখ-দুঃখ, আনন্দ-কষ্টের সমস্ত কিছুর আপডেট পেতে ভালোবাসি। যেখানে আমাদের মস্তিস্ক খুব একটা খাটাতে হয় না। তাহলে আজ থেকেই সোশ্যাল মিডিয়া বা স্মার্টফোন Smartly ব্যবহার করুন।

তাহলে সোশ্যাল মিডিয়া যাতে আমাদের ঘুমে বাজে প্রভাব না ফেলে তার জন্য কি করবেন? উপায় হলঃ-

  • ১। রাতে ঘুমোতে যাওয়ার অন্তত ৩০-৪০ মিনিট আগে থেকে সোশ্যাল মিডিয়া দেখবেন না।
  • ২। সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহারের ক্ষেত্রে নিজেকে একটু সচেতন করুন। সোশ্যাল মিডিয়া যেন আপনার জীবনের Boss না হয়ে ওঠে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *